কেইথ ওয়ালড্রপ

১৯৩২ সালের ১১ ডিসেম্বর অামেরিকার কানসাসের এ্যাম্পোরিয়াতে জন্মগ্রহন করেন কেইথ ওয়ালড্রপ। শিক্ষা ও জাতীগতভাবে কেইথ একজন অামেরিকান কবি। কবি ও অনুবাদক হিসেবে কেইথ প্রশংসনীয়। কেইথ ২০০৯ সালে ‘ন্যাশনাল বুক অ্যাওয়ার্ড লাভ’ করেন।
কেইথ ১৯৬৪ সালে মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয় হতে ‘তুলনামুলক সাহিত্য’ এর ওপর পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। এবং ১৯৬৮ সাল থেকে কেইথ ওয়ালড্রপ ব্রাউন ইউনিভার্সিটিতে অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত অাছেন।


কেইথ ওয়ালড্রপের কবিতা:

কবি

ফুড়িয়ে যাচ্ছে বাতাস, অামি খুঁজে পেলাম একটি নিঃসঙ্গ শহর,
মানুষের পদক্ষেপ, দাড়িয়ে থাকা, ছুটে চলা, ভীর মুক্ত এক শহর।
যেখানে সাদৃশ্যময় গল্পরা পরে অাছে, পথরের মতো,
চাপা পরা মৃত গাছের মতো, দাতের সাদৃশ ইটের মতো।

ঠিক তখন, অামি লিখতে শুরু করি পৃথিবীর সকল স্থানে।
অামার উচিৎ নয়__ লেখা
অতোটা দূরের কিছু নিয়ে, বরং
নিজের ভেতর তৈরি করি অসংখ্য বসতি,
যা অামার মজ্জার উর্ধ্বে।

মুল: দ্যা পোয়েট। ভাষান্তর: সৌরভ মাহমুদ


পৃথিবীর গভীরে

প্রথমেই অামার দৃষ্টি চলে গেলো-
একজন অার্মির প্রতি; দশহাজার সশস্ত্র
যুদ্ধ প্রস্তুত অার্মি। যেনো অায়নার প্রতিবিম্বে
অস্ফুট এবয ক্ষীণ অালোর বিচ্ছুরণ, অর্থাৎ
খুব দ্রুতই ভেসে যাবে সবকিছু। ভেঙে পরবে সবকিছু।
অার চোখের সামনে নিরিহ দর্শকদের স্পষ্ট ছবি।
ভেসে ওঠছে: সমুদ্রবন্দর, পাথরের স্তুপ,
উপকূল, নদী, ঝর্ণা,
মন্দির, উদ্যান, পাহাড়, পালের পর পাল জুড়ে
পশুপালের দল। কখনো কখনো পৌরণিক দৃশ্যপট,
ঈশ্বরের প্রতিমা, ট্রয়ের যুদ্ধ ও ওডিসির প্রলাপ।
সকল অপমানই মন্দ লাগে এমন সময়।
এবং তখনও অামাদের সামনে বিকৃত অঙ্গের প্রাচীন চিত্র,
ঝাড়বাতির অার্মেনিয় নীল রঙের অালোসজ্জ মন্দির,
এবং প্রচন্ড লাল অার চারিদিকে মাদকীয় লাল বর্ণের বিচ্ছুরণ।

মুল: বিলও দ্যা অার্থ। ভাষান্তরঃ সৌরভ মাহমুদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *